যুবরাজ চার্লসের সঙ্গে প্রিন্সেস ডায়ানার বিয়ে সম্পন্ন হয় ৪০ বছর আগে ১৯৮১ সালের ২৯ জুলাই। আগামী ১১ আগস্ট নিলামে উঠছে সেদিন যে কেকটা কাটা হয়েছিল প্রাচীন সেই কেকের একটি টুকরো। কেকের টুকরোর পাশে এখনও লেবেল সাঁটা রয়েছে- ‘হ্যান্ডল উইথ কেয়ার, প্রিন্স চার্লস-প্রিন্সেস ডায়ানা’জ ওয়েডিং কেক’।

কেমন মূল্যে বিক্রি হবে এতদিনের সেই ‘বাসি’ কেক ?  লন্ডনের নিলাম সংস্থা ডমিনিক উইন্টারের হিসাব বলছে, ৩০০ থেকে ৫০০ পাউন্ড তো বটেই।

বিখ্যাত সেই রাজকীয় বিয়েতে হাতে সাদা গোলাপ-টিউলিপের তোড়া আর সাদা প্রিন্সেস গাউন, মাথায় স্পেনসার টিয়ারা পরে পরীর সাজে সেদিন সেন্ট পলস ক্যাথিড্রালে এসেছিলেন প্রিন্সেস ডায়ানা। যুবরাজ চার্লসের সঙ্গে বিয়ের আসরে তার ওই হাসিমুখ ফ্রেমের প্রেমে এখনও পাগল দুনিয়া। এবার বিখ্যাত হওয়ার পালা তাদের বিয়ের স্মারক ওই প্রাতরাশের টেবিল থেকে আসা কেক-স্লাইসের। মাপে আট ইঞ্চি বাই সাত ইঞ্চি। মার্জিপান-সুগার আইসিংয়ের ওপর সোনালি, লাল আর নীল রঙের রয়্যাল কোর্ট অব আর্মসের প্রতীক। রাজ পরিবারের সম্পদই বটে।

 

জানা গেছে, ব্রিটেনের রাজবাড়িতে মোট ২৩টি কেক কাটা হয়েছিল ১৯৮১ সালের ওই শুভ দিনে। সেন্টার টেবিলেই ছিল এই পাঁচ ফুট লম্বা ফ্রুটকেক। যে টুকরোটি নিলামে উঠছে, সেটি সেদিন তুলে দেওয়া হয়েছিল রানির কর্মচারী মোয়রা স্মিথকে। আরও অনেকে খেয়েছিলেন সেই কেক। মোয়রা শুধু ওই টুকরোটি অতি যত্নে নিজের কাছে রেখে দেন ২০০৮ সাল পর্যন্ত। পরে এক সংগ্রাহক স্লাইসটি তার থেকে চেয়ে রাখেন নিজের বাড়িতে। নিলামে তোলার জন্য ডমিনিক উইন্টার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ওই সংগ্রাহকই সম্প্রতি যোগাযোগ করেন বলে জানা গেছে।

সেই স্লাইসের এখন কেমন চেহারা ! এইতো যেন সদ্য নিখুঁতভাবে কেটে আনা হয়েছে কেকটি। যেমন ছিল তেমনই যেন অবিকল একেবারে!